ফেসবুক থেকে আয় করার সঠিক পদ্ধতি

Spread the love

কখনো ফেসবুক থেকে আয় করার কথা ভেবেছেন? কিন্তু ফেসবুক হচ্ছে অনলাইন আয় করার সবচেয়ে সহজ এবং সুন্দর একটি প্ল্যাটফর্ম। আমরা সাধারণত বন্ধুদের সাথে গল্পগুজব করার জন্য আর ছবি শেয়ার করার জন্য ফেসবুক ব্যবহার করে থাকি।

ফেসবুক থেকে আয় করুন

কিন্তু আপনি কি জানেন আপনি ঘরে বসেই ফেসবুক থেকে আয় করবেন অনেক টাকা। হ্যাঁ এটা স্বপ্ন নয়, বাস্তব।

হ্যাঁ আমি বাস্তব কথা বলছি আপনি ঘরে বসেই ফেসবুক থেকে অনলাইন ইনকাম করতে পারবেন। আপনি হয়তো কল্পনাও করতে পারবেন না যে কত মানুষ ফেসবুক থেকে আয় করছেন।

ফেসবুক থেকে আয় করার অনেকগুলি পথ আছে, আমি তার মধ্যে সবচেয়ে সহজ এবং সরল পথটি আজকে আপনাদেরকে বলবো।

প্রথমবার যখন আপনি পুরো লেখাটা পড়বেন আপনার মনে হতে পারে এত ঝামেলা করে অনলাইন ইনকাম করার কোন দরকার নেই। কারণ প্রথমে আমারও তাই মনে হয়েছিল। 

কিন্তু বিষয়টা একবার বুঝে নিলে আপনার কাছে পুরো বিষয়টাকে একদমই ঝামেলা বলে মনে হবে না। তাছাড়া পুরো প্রসেস আপনাকে সারাজীবনে একবারই করতে হবে আর সেখান থেকে আপনি সারাজীবন রোজগার করতে পারবেন  

আপনার বোঝার সুবিধার জন্য আমি আলাদা আলাদা ভাবে ভিডিওগুলো দিয়ে রাখছি

ফেসবুক থেকে অনলাইন ইনকাম

ফেসবুক থেকে আয় করার উপায় গুলি দেখুন 

  • ইউটিউব এর মত ফেসবুকেও আপনি একটি পেজ বানিয়ে সেখানে ভিডিও আপলোড করে ভিডিও মনিটাইজের মাধ্যমে অনলাইন আয় করতে পারেন।
  • আপনার যদি ব্লগ বা ওয়েবসাইট থেকে থাকে তাহলে সেই লিঙ্ক ফেসবুক ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল এর মাধ্যমে শেয়ার করে আর্নিং করতে পারেন।
  • আপনি এফিলিয়েট লিংক ফেসবুকে শেয়ার করে সেখান থেকেও ইনকাম করতে পারেন।

কিন্তু আমি আজকে যে মাধ্যমে টি আপনাদেরকে বলছি সেই মাধ্যমে থেকে আপনি খুব সহজে সবচেয়ে বেশি ইনকাম করতে পারবেন।

Best earning application 2020 পড়ুন আজকেই ইনকাম শুরু করুন।

আমার লেখা শুরু করার আগেই একটা কথা বলে রাখা ভালো এই পদ্ধতি কিন্তু ফ্রী নয়, প্রথমদিকে আপনাকে ইনভেস্ট করতে হবে পরে আর ইনভেস্ট করার দরকার পড়বে না।

রিসেল করে ফেসবুক থেকে আয় সবচেয়ে বেশি করা যায় 

ফেসবুক থেকে আয় করার  উপায় অনেক আছে। তার ভেতর সবচেয়ে সহজ মাধ্যম হচ্ছে রিসেল করা, রিসেল করে আপনি খুব সহজেই ঘরে বসে দৈনিক দুই থেকে পাঁচ হাজার টাকা ইনকাম করতে পারবেন। অনেকেই রিসেল থেকে প্রতিদিন পনেরো কুড়ি হাজার টাকা পর্যন্ত রোজগার করে থাকেন।

  • রিসেল কথাটির মানে যদি আপনাকে আমি খুব সহজভাবে বোঝাই তাহলে রিসেল মানে হচ্ছে অন্যের প্রোডাক্ট সেল করা। ধরুন আমার একটি কলমের দোকান বা কোম্পানি আছে আমি চাইছি, আমি চাইছি আমার কলম অনেকেই বিক্রি করুক। যারা বিক্রি করবে তাদের জন্য আমি কলমটির দাম রেখেছি ৫ টাকা প্রতি পিস। এরপর যে কলমটি বিক্রি করবে সে ৬ টাকাতেই বিক্রি করুক কিংবা ১০০ টাকায়, তাতে আমার কিছু যায় আসে না। আমি সেই বিক্রেতার কাছ থেকে প্রতি কলম পিছু ৫ টাকাই নেব। সে যত বেশি দামে বিক্রি করতে পারবে পুরো লাভটাই থাকবে তার নিজের। এখানে যে ব্যক্তি আমার কলম বিক্রি করছে সেই ব্যক্তি হচ্ছে রিসেলার কারণ রিসেল তিনি করছেন।

আশা করি বিষয়টা আপনাকে খুব সহজ ভাবে বোঝাতে পেরেছি।

আপনি হয়তো ভাবছেন আপনি এমন কলম বা এই ধরনের প্রোডাক্ট কোথায় পাবেন! না আপনাকে চিন্তা করার কোনও দরকার নেই আমি একটি অ্যাপ্লিকেশনের কথা বলছি এই অ্যাপ্লিকেশন থেকে আপনি লাখ লাখ প্রোডাক্ট পাবেন, যেখানে তার প্রাইস দেওয়া থাকবে এবং আপনি যত বেশী দামে বিক্রি করতে পারবেন পুরো লভ্যাংশ থাকবে আপনার। লাভের সঙ্গে আপনি বেশি বিক্রি করার জন্য আরো এক্সট্রা বোনাস পাবেন।

এই অ্যাপ্লিকেশনটি নাম হচ্ছে মিসো। সবার প্রথমে আপনাকে মিসো অ্যাপ্লিকেশনটি ডাউনলোড করতে হবে তারপর রেজিস্টার করতে। এরপর একটি রেফারেল কোড দেওয়ার দরকার পড়বে আমি রেফারেল কোডটি আপনাকে এখানে দিয়ে দিচ্ছি।

  আপনার রেফারেল কোডটি হল☛  BAPPADI166 

Download Meesho

মিসো অ্যাপ্লিকেশনটি ডাউনলোড করার পর আপনি কীভাবে রিসেলিং শুরু করবেন তা আমি আপনাকে আরো বিস্তারিত ভাবে বোঝাচ্ছি। যাতে আপনার একবিন্দুও সমস্যা না হয়।

  • মনে রাখবেন মিসো এপ্লিকেশন থেকে কাস্টমার সরাসরি প্রোডাক্ট কিনতে পারে না। কাস্টমারের অর্ডার আপনাকেই সাবমিট করতে হবে। তাহলে দরকার কাস্টমারের নাম ঠিকানা আর মোবাইল নম্বর।
  • নাম ঠিকানা মোবাইল নম্বর কালেক্ট করার জন্য সবার প্রথমে আপনাকে একটি ফ্রি গুগল সাইট বানাতে হবে। আপনি যে জিনিস বিক্রি করতে চাইছেন সেই জিনিসের নামের উপরে গুগল সাইটটা বানান তাহলে লোকের বিশ্বাস অর্জন করবেন অনেক দ্রুত। লোকে নাম ঠিকানা মোবাইল নম্বর দিতেও হেজিটেট ফিল করবে না। 
  • যদি আমি কলম বিক্রি করতে চাই তাহলে আমি গুগল সাইট এর নাম কলম দিয়েই রাখব। আপনাকে বোঝানোর সুবিধার জন্য আমি আমার একটি গুগোল সাইটের লিঙ্ক এখানে দিয়ে রাখলাম👉 নিজের সৌন্দর্য বাড়ান মাত্র কুড়ি দিনে
  • আপনার গুগল সাইটে আপনাকে কাস্টমার নিয়ে আসতে হবে এবং ইন্টারেস্টেড কাস্টমার এর কাছ থেকে নাম, ঠিকানা আর মোবাইল নাম্বার কালেক্ট করতে হবে। 
  • মিসোতে যখন আপনি কোনও অর্ডার সাবমিট করবেন তখন কাস্টমারের নাম ঠিকানা মোবাইল নাম্বারের দরকার পড়বে। 
  • গুগল সাইট বানানো হয়ে গেলে দরকার পড়বে একটি ফেসবুক পেজ তৈরি করার। আপনি যদি ফেসবুক পেজ বানাতে না জানেন তাহলে ইউটিউবে গিয়ে সার্চ করুন কিভাবে একটি ফেসবুক পেজ বানাবো? ম্যাক্সিমাম এক মিনিট সময় লাগবে আপনার একটি ফেসবুক পেজ বানানো শিখতে। পাঁচ মিনিটের ভেতরে আপনি একটি সুন্দর ফেসবুক পেজ বানিয়ে নিতে পারবেন।

তাহলে এখনো পর্যন্ত আপনাকে কী কী করতে হয়েছে আরেকবার দেখুন, ভয় পাবেন না। আমার বিশ্বাস সবাই পারবেন। কঠিন ভাবে নেবেন না। মিসো এপ্লিকেশন ডাউনলোড করে রেজিস্টার করেছেন, রেফারেল কোড দিয়েছেন, গুগল সাইট বানিয়েছেন, ফেসবুক পেজ বানিয়েছেন।

এরপর আপনাকে গুগল সাইটের লিংক ফেসবুক পেজে শেয়ার করতে হবে। ফেসবুক পেজে লিংক শেয়ার করার পর সেই লিংকে ভিজিটর আনার জন্য সাত দিনের জন্য ৩৫০ টাকার বিজ্ঞাপন চালাতে হবে।

মিসো অ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করতে কিংবা গুগল সাইট বানাতে অথবা ফেসবুক পেজ তৈরি করে তাতে বিজ্ঞাপন চালাতে কোনও জায়গাতে যদি আপনার কোনওরকম সমস্যা হয়ে থাকে তাহলে আপনি কমেন্ট করে সেটা আমাকে জানাতে পারেন।

আমি আরো একটা পোস্ট লিখে আপনার সমস্যার সমাধান করব কিংবা আপনি চাইলে আমাকে সরাসরি কন্টাক করতে পারেন আমার ওয়েবসাইটে আমার কন্টাক্ট নাম্বার দেওয়া আছে।

অনলাইন ইনকাম করার আরও পাঁচ রাস্তা

আপনি কী মোবাইলে ছবি তুলতে ভালবাসেন তাহলে দেখুন,- ছবি বিক্রি করে ইনকাম

6 thoughts on “ফেসবুক থেকে আয় করার সঠিক পদ্ধতি”

  1. Pingback: জেনেনিন কেন লাইফ ইন্সুরেন্স করা উচিৎ > Bengali Shayari

  2. Sumon kumar sarker

    I am very much interested about this Facebook earning.How can you help me brother.I cant understand this.but I need it.

  3. ধন্যবাদ । আপনার লেখাটি পড়লাম এবং ইচ্ছা আছে চেষ্টা করে দেখবো। গুগুল সাইট বলতে কি বোঝাচ্ছেন বুঝতে পারলাম না। আমার এমনিতে হার্ডওয়ার আইটেমের পাইকারি বিক্রীর জন্য গুগুল মাই বিজিনেস বলে একটা সাইট আছে , লোকজন সেটা দেখে আমাকে দূর দুরান্ত থেকে ফোন দেয়। যেহেতু আমি ঠিকমতো মাল দিতে পারি না , ব্যবসাও হয় না। কারন, বিদেশি বিভিন্ন মাল অল্প পরিমানে কিনতে চায়, সব স্টক থাকে না।
    সম্প্রতি গুগুলের জি সুইচ বলে একটা সার্ভিস নিয়েছিলাম। কাপড় ও ক্রোকারিজ এর ব্যবসা করব বলে! কিন্তু এদের কোন সার্ভিস পাই নি বা বুঝতে পারছি না। প্রতি মাসে ২০ ডলার করে কাটে ; কিছুতেই থামাতে পারছি না।
    একটা ফেসবুক পেজ খুলেছিলাম। হাজার হাজার বেকার লোক লাইক দিল, কিন্তু বিক্রী কিছুই হল না। ফেসবুক কোম্পানি প্রায় ৩০,০০০/- টাকা কার্ড থেকে কেটে নিল। বলছিল ২০০০/ টাকা কাটবে, কিন্তু বুলেট করা সহ নানাবিধ উপায়ে বিল চার্জ করে ভয় ধরিয়ে দিল। । কার্ডের অপারেশান বন্ধ করে কোনক্রমেই বাঁচলাম।
    আপনার ৭ দিনে ৩৫০/- টাকা খরচে বিজ্ঞাপন ধারণা টি পছন্দ করলাম, কিন্তু ঠিক ভরসা পাচ্ছি না।আমি চট্রগ্রামে থাকি। আমার কোম্পানির একটা ওয়েবসাইটও আছে।
    ভালো কথা আপনি মাল কেনার জন্য যে সাইটটার কথা বললেন- মিশে না কি যেন – সেটা কি বাংলাদেশের সাইট? বিদেশি হলে টাকা পাঠানো বা টাকা তোলা তো অনেক ঝামেলা !
    সম্ভব হলে জানাবেন। ভালো থাকবেন।
    মহিব
    [email protected]
    ০১৭৬৬৬৮৫৯৩২

  4. Pingback: ৭৪ তম স্বাধীনতা দিবসের শুভেচ্ছা > Bengali Shayari

  5. Pingback: Ma Mansa মা মনসা, মনসামঙ্গল কাব্য > Bengali Shayari

  6. Pingback: ২০ হাজারের কম দামে স্কুটি, হ্যাঁ স্বপ্ন নয় ঠিকই পড়ছেন > Bengali Shayari

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *